মঙ্গলবার ৩০, নভেম্বর ২০২১
EN

আদার্শিক সন্তান গড়তে কিছু করণীয়

জানতে হবে কিশে বিলাশিতা, প্রয়োজনীয়তা, ও নৈতিকতার কষ্টিপাথরে যাচাই করে নিতে হবে প্রতিটি কথা ও কাজকে।

সন্তানকে আলোকিত মানুষ করতে হলে আপনাকে জানতে হবে ভালো-মন্দ সম্পর্কে, ন্যায়-অন্যায় সম্পর্কে, করণীয়-বর্জনীয় সম্পর্কে। জানতে হবে কিশে বিলাশিতা, প্রয়োজনীয়তা, ও নৈতিকতার কষ্টিপাথরে যাচাই করে নিতে হবে প্রতিটি কথা ও কাজকে।

ব্যক্তি, পরিবার এবং সমাজ শুদ্ধাচারী হলেই দুর্নীতি ও অনাচারমুক্ত স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে উঠবে। সন্তানকে পরিবারের অংশ করে তুলতে তাই বাবা-মায়েরা কিছু ছোট ছোট করণীয় অনুসরণ করতে পারেন-

১. ছোটবেলা থেকেই তাকে পরিবারের কাজের অংশীদার হতে শেখান। সংসারের সময়-সুযোগমতো সেসব কাজে তাকেও শরিক করে তুলুন। কষ্ট হবে, পারবে কি না, ইত্যাদি ভেবে এসব থেকে তাকে দূরে সরিয়ে নিজের কাজগুলো তাকে নিজেকেই করতে দিন।

নিজের বই, কাপড়চোপড় , নিজের খাবার , স্কুলের জন্যে তৈরি হওয়া, গোসল করা ইত্যাদি কাজগুলো নিজে নিজেই করতে পারে, সেভাবে তৈরি করুন।২. ছোট থেকেই একা একটা ঘরে থাকার অভ্যাস করতে দেবেন না। পরিবারের অন্য কোনো সদস্যকেও সে রুমে রাখুন। বড় হবার পর একা থাকতে হলেও সারাক্ষণ দরজা বন্ধ করে ভেতরে থাকার অভ্যাস যাতে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখুন।

৩. সারাক্ষণই মোবাইল, ট্যাব, ল্যাপটপ বা কম্পিউটার অর্থাৎ এ জাতীয় ইলেকট্রনিক গ্যাজেট অতিরিক্ত ব্যবহার করতে দিবেন না। বরং আপনারা তাকে সময় দিন। তার পছন্দ, শখ এসব নিয়ে গল্প করুন। বেড়াতে নিয়ে যান। পছন্দের কাজে ব্যস্ত রাখুন। সবসময় মনে রাখবেন আপনার সন্তানের বিকাশের জন্যে আপনার স্নেহ-মমতা ও সমমর্মিতাই সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।

৪. বাড়িতে আত্মীয় বন্ধুরা এলে তাদের সাথে তাকে পরিচয় করিয়ে দিন। কারো বাড়িতে গেলে বা কোনো নিমন্ত্রণে গেলে তাদেরকেও সাথে নিয়ে যান। সমবয়সীদের সাথে খেলনা, চকোলেট বা পছন্দের যে-কোনো জিনিস ভাগ করে নিতে শেখান।

৫. সারাক্ষণ শুধু পড়া পড়া বা কোচিং, ট্রেনিং ইত্যাদিতে তাকে ব্যস্ত রাখবেন না। তার সাথে নানান বিষয় নিয়ে গল্প করুন। সন্তানের ওপর জীবনের লক্ষ্য চাপিয়ে দেবেন না। সিদ্ধান্ত নিতে তাকে সহযোগিতা করুন।

৬. নিজ নিজ ধর্মবিশ্বাস অনুসারে সন্তানকে ধর্মীয় শিক্ষা দান করুন। সঠিক ধর্ম জ্ঞানের অভাব সন্তানকে ধর্মান্ধ করতে পারে। ধর্মগ্রন্থের মর্মবাণী অনুধাবনে, অনুশীলনে তাকে উদ্বুদ্ধ করুন। নিজ নিজ ধর্মের মহামানব এবং সমাজকর্মে অবদান রাখা বিশিষ্টজনদের জীবনী পাঠ করান এবং এ সম্পর্কে আলোচনা করুন।

কোনো অস্ত্রই লোহা ছাড়া তৈরি হয় না, কোনো লোহা আগুনে পোরা ছাড়া মজবুত হয় না। আর কোনো মুসলিম কোরআন জানা ছাড়া খাটি মুসলিম হয় না।

৭. ছোটবেলা থেকেই সন্তানকে ভালো কাজে, ভালো বা সৎসঙ্ঘের সাথে সম্পৃক্ত করুন। নৈতিক, মানসিক, আত্মিক ও সৃজনশীল গুণাবলি বিকাশের সুযোগ সৃষ্টি করুন।

খেলাধূলা, বইপড়া, মেডিটেশন, যোগব্যায়াম, গাছ লাগানো ও তার পরিচর্যা, সঙ্গীত চর্চা, ছবি আঁকা, সামাজিক সেবামূলক কাজে অংশগ্রহণ এবং অন্যকে সহযোগিতা, অন্যের প্রতি মমতায় তাকে উদ্বুদ্ধ করুন।

৮. সন্তানকে নেতিবাচক কথা বলে তিরস্কার করবেন না। ধমকে কথা বা রাগের মাথায় অভিশাপ দেবেন না। সবসময় আদেশ না করে তার করণীয় কাজ যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দিন।

অন্যদের সামনে বকা বা তার ভুল ধরিয়ে না দেয়া। পরে শুধরে দিন। সন্তানের কোনো ভুলকে অপরাধ বা পাপ হিসেবে তুলে না ধরা। তাকে শোধরাবার চেষ্টা করুন। তাকে ভুল থেকে শিক্ষা নিতে সাহায্য করবে।

৯. সন্তান কোনো কিছু চাওয়ার সাথে সাথেই তাকে তা দেয়ার অভ্যাস পরিহার করুন। তার অন্যায় আব্দার পূরণ না করা। পরিবারের আর্থিক সামর্থ্য ও বাস্তব অবস্থা সম্পর্কে সন্তানকে যথাযথ ধারণা দিন। এক সন্তানকে অন্য সন্তানের সাথে তুলনা করবেন না।

১০. সন্তানের মধ্যে কোনো বদভ্যাস তৈরি হতে দেবেন না। বদভ্যাসকে প্রথমেই শনাক্ত করুন ও তা দূর করুন।  বিনোদনের নামে সন্তান অপসংস্কৃতি ও ড্রাগ এডিকশনের শিকার হচ্ছে কি না লক্ষ্য রাখুন। বড় হওয়ার সাথে সাথে তার বন্ধুদের ব্যাপারে সজাগ থাকুন।

১১. এছাড়া সন্তানের সামনে নিজেকে আদর্শ হিসেবে উপস্থাপন করুন। ভুল করে ফেললে দুঃখ প্রকাশ করুন। সন্তানকে আদরের নামে প্রশ্রয় নয়। ও শাসনের নামে অত্যাচার নয়।

আদর ও শাসনের সমন্বয়ে তাকে বিকশিত হতে দিন। বিষয় ও বয়স বুঝে তাদেরকেও পারিবারিক পরামর্শে অংশীদার করুন।

এএস

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *