মঙ্গলবার ২৫, জানুয়ারী ২০২২
EN

কক্সবাজারে ধর্ষণসহ নানা অপরাধের নেতিবাচক প্রভাব, পর্যটনে ভাটা

সাম্প্রতিক নারী পর্যটক-স্কুলছাত্রী ধর্ষণ ও মাদকের ঘটনাসহ নানা নেতিবাচক প্রভাবে কক্সবাজারে কাঙ্ক্ষিত পর্যটক আসেনি। আগে থার্টি ফাস্ট নাইট উদযাপনে কক্সবাজারে হোটেলে কোনো রুম খালি থাকত না। এবার ৫০ শতাংশ হোটেলের রুম খালি ছিল।

সাম্প্রতিক নারী পর্যটক-স্কুলছাত্রী ধর্ষণ ও মাদকের ঘটনাসহ নানা নেতিবাচক প্রভাবে কক্সবাজারে কাঙ্ক্ষিত পর্যটক আসেনি। আগে থার্টি ফাস্ট নাইট উদযাপনে কক্সবাজারে হোটেলে কোনো রুম খালি থাকত না। এবার ৫০ শতাংশ হোটেলের রুম খালি ছিল।

গাড়ি পার্কিং, পর্যটন গলফ মাঠের ইজারাদার কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর সালাহউদ্দিন সেতু বলেন, গত ১৬ ডিসেম্বর ছুটির ৩ দিনে পর্যটকদের বড় বাস পার্কিং ছিল ৩৫০টি। পার্কিং জায়গা না পেয়ে স্থানীয় ইলিয়াছ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে আরো ২৫০ বড় বাস পার্কিং করা হয়। প্রতিদিন প্রায় ৭০০ বাস কক্সবাজারে পার্কিং হয়।

কিন্তু এবারে বছরের বিদায় ও বরণ উপলক্ষে কক্সবাজারে পর্যটকদের বড় বাস পার্কিং করা হয় মাত্র ৫০টির মতো। এ থেকে বুঝা যায় অন্য ছুটির সময়ের তুলনায় এবার পর্যটক আসেনি বললেই চলে।

তিনি বলেন, এতে বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েছে পর্যটক ব্যবসায়ীরা। মূলত থার্টি ফাস্ট নাইটকে উপলক্ষ্য করে পার্কিং ইজারা নেয়া হয়। এতে করে এবার কাঙ্ক্ষিত প্রাপ্তি হয়নি।

মূলত পর্যটক নারী ধর্ষণ ও ডাল-ভাতের দাম বেশি নেয়ার ঘটনা ভাইরাল হওয়ার কারণে এবার কক্সবাজার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে পর্যটকরা।

কক্সবাজারে পর্যটকদের স্বাগত জানিয়ে জেলা প্রশাসক মো: মামুনুর রশীদ বলেন, কক্সবাজার শুধু দেশের নয় পৃথিবীর একটি আকর্ষণীয় পর্যটন জোন। তাই বিদেশী বেশ কিছু পর্যটক এসেছে এবার। বছরের প্রথম দিনে পর্যটকদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এ জন্য স্ব স্ব হোটেল পর্যটকদের ফুল দিয়ে বরণ করেন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি কক্সবাজারকে নিয়ে প্রচারণায় কিছুটা নেতিবাচক প্রভাব পড়লেও পর্যটকদের সেবার মান বাড়াতে এবং সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে একাধিক বৈঠকে প্রয়োজনী সিদ্ধান্ত ও প্রস্তুতি নেয়া হয়। শুধু থার্টি ফাস্ট নাইট বা বর্ষবরণ নয় ভরা পর্যটন মৌসুমে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

মনিটরিং কমিটি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করছেন জানিয়ে মামুনুর রশীদ বলেন, সরকারিভাবে জানিয়ে দেয়ার কারণে এবার উন্মুক্ত স্থানে থার্টি ফাস্ট নাইটের কোনো আয়োজন করা হয়নি।

কক্সবাজার হোটেল মোটেল গেস্ট হাউজ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার জানান, এবার ধর্ষণের ঘটনায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ায় পর্যটনের সংখ্যা কমে গেছে। বছর বিদায় ও বরণের এমন সময়ে কক্সবাজারে এমন নাজুক অবস্থা আর হয়নি।

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *