শুক্রবার ২১, জানুয়ারী ২০২২
EN

কুষ্টিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে জামায়াতের আর্থিক সহযোগিতা

গত ১০ জানুয়ারি কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের ভাদালিয়ায় বালুভর্তি ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে ৪ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিনজন নারী এবং একজন পুরুষ। আজ ১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হয়।

১০ জানুয়ারি ভোর সাড়ে ৫টার দিকে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের ভাদালিয়ায় বালুভর্তি ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে ৪ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও একজন শ্রমিক। নিহতদের মধ্যে তিনজন নারী এবং একজন পুরুষ।

১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হয়। নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে আমীরে জামায়াতের পক্ষ থেকে আর্থিক অনুদান প্রদান করেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও যশোর-কুষ্টিয়া অঞ্চল পরিচালক জনাব মোবারক হোসাইন।

ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম-এ যোগ দিয়ে আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমান সকলের উদ্দেশে বলেন, “স্বাধীনতার পর থেকে দেশে যথেষ্ট অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে এটা সত্য।

তবে এখনো মানুষ স্বাধীনতার প্রকৃত সুফল থেকে বঞ্চিত। আজও মানুষের জান ও মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়নি। সড়কগুলোর ভঙুর অবস্থা। অথচ কোনো তদারকি নেই।

সড়কপথে শৃঙ্খলা না থাকায় অসংখ্য বনিআদমকে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করতে হচ্ছে। নাগরিকদের অধিকার রক্ষা এবং সড়কপথ ও গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সরকারকে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, “জামায়াতে ইসলামী আল কুরআনের ভিত্তিতে বাংলাদেশকে একটি কল্যাণ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। সীমাহীন জুলুম-নিপীড়ন উপেক্ষা করে জামায়াতে ইসলামী সামর্থ্য অনুযায়ী আর্ত-মানবতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে।

দেশের যে কোনো প্রান্তে সড়ক দুর্ঘটনা, অগ্নিকান্ডসহ বিভিন্ন দুর্যোগে ধর্ম-বর্ণ-দল নির্বিশেষে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে আমরা আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকবো ইনশাআল্লাহ।”

তিনি বলেন, “গত ১০ জানুয়ারি ভাদালিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন, আমি তাদের জন্য মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করছি, তিনি যেন তাদেরকে শাহাদাতের মর্যাদা দেন এবং যারা নিহত হলেন, তাদের পরিবারের শূন্যতা কিছুতেই পূরণ হবার নয়। একমাত্র আল্লাহই তার রহমতের চাদর দ্বারা সকল শূন্যতা পূরণ করে দিতে পারেন।”

এ সময় আমীরে জামায়াত নিহতদের পরিবার-পরিজনদের ধৈর্যধারণ ও এই শোক কাটিয়ে উঠার তাওফিক কামনা করে নিহতদের পরিবারের সদস্য এবং স্থানীয় লোকদের নিয়ে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দরবারে দোয়া করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও যশোর-কুষ্টিয়া অঞ্চল পরিচালক জনাব মোবারাক হোসাইন, জেলা আমীর অধ্যক্ষ খন্দকার এ কে এম আলী মুহসিন, জেলা নায়েবে আমীর অধ্যাপক ফরহাদ হোসাইন, জেলা সেক্রেটারি অধ্যাপক আবুল হাশেম, সহকারী সেক্রেটারি জনাব আব্দুল গফুর ও অধ্যাপক সুজাউদ্দীন জোয়ার্দার, সদর উপজেলা আমীর জনাব হামিদুল ইসলাম, সদর সেক্রেটারি জনাব আব্দুস সালামসহ আরও অনেকে। (প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *