শুক্রবার ৩, ডিসেম্বর ২০২১
EN

চীনা টেনিস তারকা যৌন নির্যাতনের অভিযোগ এনে ‘নিখোঁজ’, উদ্বেগ বাড়ছে

যুক্তরাষ্ট্র বলছে, টেনিস তারকা পেং শুয়াই দুই সপ্তাহ আগে চীনের সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ আনার পর থেকে তাকে আর জনসমক্ষে দেখা যায়নি বা তার কোনো কথা শোনা যায়নি, যা ‘গভীরভাবে উদ্বেগজনক।’

যুক্তরাষ্ট্র বলছে, টেনিস তারকা পেং শুয়াই দুই সপ্তাহ আগে চীনের সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ আনার পর থেকে তাকে আর জনসমক্ষে দেখা যায়নি বা তার কোনো কথা শোনা যায়নি, যা ‘গভীরভাবে উদ্বেগজনক।’

পেং শুয়াই এখন কোথায় আছেন এবং তিনি নিরাপদে আছেন কিনা হোয়াইট হাউস তার ‘নিরপেক্ষ এবং সত্যায়িত প্রমাণ’ পেশ করার জন্য চীনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে।

জোড়া গ্র্যান্ড স্ল্যাম বিজয়ী সাবেক এক নম্বর র‌্যাঙ্কিংয়ে থাকা ৩৫ বছর বয়সী এই টেনিস তারকা অবসর নেয়া এক কম্যুনিস্ট নেতার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেন।

কী অভিযোগ টেনিস তারকার?

চীনের সামাজিক মাধ্যম সাইট ওয়েইবোতে দেয়া এক পোস্টে পেং বলেন, সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী ঝাং গাওলি তার সাথে যৌন মিলনে পেং-কে 'বাধ্য' করেছিলেন।

পেং এই পোস্ট দেন ২ নভেম্বর।

এই প্রথম চীনের ঊর্ধ্বতন কোনো রাজনৈতিক নেতার বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ আনা হলো।

চীনের উপ-প্রধানমন্ত্রী পদে ৭৫ বছর বয়সী ঝাং গাওলি দায়িত্ব পালন করেন ২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত। তিনি চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর ঘনিষ্ঠ।

পেং-এর এই দাবির কোনো উত্তর দেননি ঝাং।

‘উপ-প্রধানমন্ত্রী ঝাং গাওলি, আমি জানি আপনার মত একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি বলবেন আপনি ভীত নন,’
পেং তার পোস্টে একথা লেখেন, ‘তারপরও এটা যদি বড় পাথরের গায়ে নুড়ি দিয়ে আঘাত করার মত, বা নিজে পুড়ে মরবে জেনেও একটা মথ যেভাবে আগুনে ঝাঁপ দেয়, তার সমতুল্য হয়, তাহলেও আমি আপনার সম্পর্কে সত্য কথাটা বলতে চাই।’

পেং বলেন, টেনিস খেলার জন্য তিনি ঝাও-এর বাসভবনে গেলে প্রথমে তিনি তার ওপর জোরাজুরি করেন।

‘সেদিন বিকেলে আমি আপনার সাথে এ কাজ করার অনুমতি দিইনি, আমি সারাক্ষণ কাঁদছিলাম,’
পোস্টে তিনি লেখেন, ‘আপনি আমাকে আপনার বাসার ভেতরে নিয়ে যান এবং আপনার সাথে মিলিত হতে বাধ্য করেন।’

পেং স্বীকার করেন তার দাবির সমর্থনে তিনি কোনো প্রমাণ দিতে পারবেন না।

‘আমার কাছে কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই। কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ থাকাও অসম্ভব ছিল ...আপনি সর্বক্ষণ ভয় পাচ্ছিলেন আমি কোনো রকম টেপ রেকর্ডার নিয়ে গেছি কিনা, কোনো কিছু প্রমাণ বা কিছু রেকর্ড করেছি কিনা ...আমার কাছে কোনো অডিও রেকর্ডিং নেই, ভিডিও রেকর্ডিং নেই, শুধু আছে আমার অতি সত্য, ভয়াবহ অভিজ্ঞতাটুকু।’

ইন্টারনেট থেকে পোস্ট উধাও

পেং ওয়েইবোতে এই পোস্ট দেয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই তা চীনের ইন্টরানেট থেকে মুছে ফেলা হয়। পেং-এর অ্যাকাউন্ট থেকে সম্প্রতি দেয়া অন্যান্য সাম্প্রতিক পোস্টগুলোও মুছে ফেলা হয়। ওয়েইবো-তে পেং শুয়াই-য়ের অনুসারীর সংখ্যা পাঁচ লাখ।

পেং শুয়াই একজন বিশাল তারকা। চীনের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ এঞ্জিন বাইদু-তে তার নাম দিয়ে সার্চ করলে ৭০ লাখের বেশি ফলাফল আসে।

তবে এই পোস্টের পর থেকে চীনের সিনা ওয়েইবো মাইক্রোব্লগ সাইট, যা চীনে ফেসবুকের সমতুল্য সেখানে পেংকে নিয়ে মানুষ যাতে কথাবার্তা বলতে না পারে তার জন্য ব্যাপক দমনমূলক পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে এমন প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে জানাচ্ছেন বিবিসির চীনা বিষয়ে মিডিয়া বিশ্লেষক কেরি অ্যালেন।

পেং নাম দিয়ে সার্চ করে তার বিষয়ে এখন সীমিত পরিসরে তথ্য ইন্টারনেটে পাওয়া যাচ্ছে।

তার অনুসারীর সংখ্যা পাঁচ লাখের বেশি হওয়ার পরও এখন তারা পেং-এর অ্যাকাউন্টের সন্ধান করে কোনো তথ্য পাচ্ছে না।

আন্তর্জাতিক মহলে উৎকণ্ঠা

উইমেন্স টেনিস অ্যাসোসিয়েশন (ডাব্লিউটিএ) হুমকি দিয়েছে যে, তারা চীনে টেনিস ইভেন্টগুলোতে যোগ দেবে না।

ডাব্লিউটিএ-র সভাপতি স্টিভ সাইমন বিবিসিকে বলেছেন, মিজ পেং যদি নিরাপদ না থাকেন, তাহলে আগামী বছর চীনে কোনো প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে না।

‘আমরা শুধু প্রতিশ্রুতিতে সন্তুষ্ট হবো না। এটা ন্যায় অন্যায়ের বিষয়,’ তিনি বলেন।

চীনা টেনিস অ্যাসোসিয়েশন ডাব্লিউটিএ-কে জানিয়েছে, পেং নিরাপদে আছেন এবং তিনি বেইজিং-এই আছেন। কিন্তু সিমন বলছেন, এ তথ্য যে সঠিক তার কোনো নিশ্চয়তা নেই।

শুক্রবার আরেকটি ঘটনায় পেং-এর নাম দিয়ে উইচ্যাটের একটি অ্যাকাউন্টে তার তিনটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে। ছবিগুলোর সাথে 'সপ্তাহান্ত শুভ হোক' এই মর্মে একটি ক্যাপশানে লেখা হয়েছে 'হ্যাপি উইকেন্ড'।

তবে বিবিসিতে চীনা সংবাদমাধ্যম বিশ্লেষক কেরি অ্যালেন চীনের ইনস্টাট মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম উইচ্যাট-এর এই পোস্ট আসলে পেং-এর নিজের দেয়া পোস্ট কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

এ সপ্তাহের গোড়ার দিকে চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে একটি ইমেল প্রকাশ করা হয়। বলা হয়, এই ই-মেইল পেং শুয়াই লিখেছেন যেখানে তিনি বলেছেন বলে দেখা যায় যে, ঝাং-এর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ‘সত্য নয়’।

ডাব্লিউটিএর সভাপতি সাইমন বলছেন, এই ইমেল মিজ পেং আসলেই নিরাপদ আছেন কিনা তা নিয়ে ‘উৎকণ্ঠা আরো বাড়িয়েছে’।

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশানাল বলছে এসব ‘কথার মূল্য্য যাচাই করে দেখা উচিত’। তবে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি বলেছে তারা মনে করে ‘একান্তভাবে চালানো কূটনীতির’ মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করা উচিত।

সেরেনা উইলিয়ামস, নোভাক জোকোভিচসহ টেনিস জগতের বড় বড় তারকাসহ আন্তর্জাতিক মহল, তিনি কোথায় আছেন এবং নিরাপদে আছেন কিনা, এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন।

#WhereIsPengShuai এই হ্যাশট্যাগে সামাজিক মাধ্যমে বিভিন্ন স্তরের টেনিস খেলোয়াড়রা তাদের মন্তব্য পোস্ট করছেন। সূত্র : বিবিসি।

এবিএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *