শুক্রবার ৩, ফেব্রুয়ারি ২০২৩
EN

জ্বালানির অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি অযৌক্তিক ও জনস্বার্থবিরোধী : সেলিম উদ্দিন

সম্প্রতি ‘দ্য পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার’ এবং ‘ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্নেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের’ এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে ৩ কোটি ৫৪ লাখ লোক নতুন করে দরিদ্র হয়েছে। এ অবস্থায় দেশে জ্বালানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত খুবই অযৌক্তিক এবং জনস্বার্থবিরোধী।

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের আমির মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন বলেছেন, করোনার নেতিবাচক প্রভাবে সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা প্রান্তিক পর্যায়ে নেমে এসেছে।

সম্প্রতি ‘দ্য পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার’ এবং ‘ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্নেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের’ এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে ৩ কোটি ৫৪ লাখ লোক নতুন করে দরিদ্র হয়েছে।

Sirajganj-().jpg

এ অবস্থায় দেশে জ্বালানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত খুবই অযৌক্তিক এবং জনস্বার্থবিরোধী।

আজ রোববার ( ৭ নভেম্বর) রাজধানীর বাড্ডায় অযৌক্তিকভাবে ডিজেল, কেরোসিন ও এলপিজি গ্যাসের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবিতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত এক সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সরকার লাগামহীন দুর্নীতি, লুটপাট ও দলীয় লোকদের সুবিধা দেয়ার জন্যই সম্পূর্ণ অযৌক্তিকভাবে ডিজেল, কেরোসিন এবং এলপিজি গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জ্বালানির দাম কমানো হলেও আমাদের দেশে বারবার মূল্যবৃদ্ধি গণদুর্ভোগ সৃষ্টির অনুসঙ্গ হয়ে দেখা দিয়েছে।

এ সময় তিনি জনস্বার্থ বিবেচনায় অবিলম্বে জ্বালানির বর্ধিতমূল্য প্রত্যাহারের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান।

Pic-1 (1).jpg

কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সেক্রেটারি ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিমের সঞ্চালনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সহকারী সেক্রেটারি লস্কর মোহাম্মদ তসলিম, মাহফুজুর রহমান, নাজিম উদ্দীন মোল্লা, ডা: ফখরুদ্দীন মানিক, ঢাকা মহানরীর মজলিসে শূরা সদস্য ডা: শফিউর রহমান, আতাউর রহমান সরকার, মেসবাহ উদ্দীন আহমদ নাঈম, কুতুব উদ্দীন, ইসলামী ছাত্রশিবিরের ঢাকা মহানগরী উত্তর সেক্রেটারি জাকির হোসেন, পশ্চিম সেক্রেটারি আব্দুল্লাহ আল মামুন ও প্রাইভেট সেক্রেটারি হুমায়ন কবির প্রমুখ।

মহানগরী আমির বলেন, সরকার নিত্যপণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। ফলে জনজীবন ইতোমধ্যেই বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

download (10).jpg

এ অবস্থায় বিনা কারণে ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য লিটার প্রতি ১৫ টাকা বৃদ্ধি করে জ্বালানো আগুনে ঘি দেয়া হয়েছে।

এমনকি প্রায় প্রতিমাসেই এলপিজি গ্যাসের দাম বাড়ানো সরকারের রীতিমত ট্রাডিশনে পরিণত হয়েছে। এমনিতেই নিত্য-প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জনগণের নাবিশ্বাস উঠেছে।

উপর্যুপরি তেল ও গ্যাসের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিতে অতিপ্রয়োজনীয় দ্রব্য-সামগ্রী, সেচ, কৃষিপণ্য ও পরিবহন ভাড়াসহ সকল ক্ষেত্রে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। যা সাধারণ মানুষের জন্য ‘মরার উপর খাড়ার ঘাঁ’।

এ সময় তিনি সরকারকে সকল ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের স্বার্থ ও সঙ্গতির কথা বিবেচনায় নিয়ে যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের আহ্বান জানান।

সমাবেশে তিনি আরো বলেন, এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলেই জনগণের প্রতি তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই।

তাই দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থেই অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

তিনি গণপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। ( প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *