মঙ্গলবার ৯, অগাস্ট ২০২২
EN

দেশিয় পোশাকের নতুন বাজার হতে পারে ইউরোপ

জনসংখ্যা কম হলেও ক্রয় ক্ষমতা বেশি থাকায় এসব দেশে নতুন গন্তব্য হতে পারে বাংলাদেশি তৈরি পোশাকের। সাথে আছে কৃষিজ পণ্য কিংবা রেস্টুরেন্ট ব্যবসার সুযোগ।

সমুদ্র বন্দর না থাকলেও মহাদেশের মাঝখানে হওয়ায় ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ইউরোপের বড় গেটওয়ে, অস্ট্রিয়া। তার পাশেই চেক রিপাবলিক, হাঙ্গেরি ও বলকান অঞ্চল।

প্রবাসিরা বলছেন, জনসংখ্যা কম হলেও ক্রয় ক্ষমতা বেশি থাকায় এসব দেশে নতুন গন্তব্য হতে পারে বাংলাদেশি তৈরি পোশাকের। সাথে আছে কৃষিজ পণ্য কিংবা রেস্টুরেন্ট ব্যবসার সুযোগ।

এক সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ, চেক রিপাবলিকের অর্থনীতি এখন বেশ চাঙ্গা। পর্যটন ছাড়াও অটোমোবাইল আর কৃষি শিল্পে তড়তড়িয়ে এগিয়ে যাচ্ছে দেশটি। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকলেও, এখনও চালু করেনি মহাদেশীয় অভিন্ন মুদ্রা ইউরো।

চেক রিপাবলিকের রাজধানী প্রাগের কূটনৈতিক এলাকায় রেস্টুরেন্ট ব্যবসা মো. ইউনুসের। ১০ বছর আগে শুরু করা এই বাংলাদেশির রেস্টুরেন্ট এখন স্থানীয়দের মাঝে বেশ জনপ্রিয়।

এখানকার পাচক, পরিবেশক কিংবা ব্যবস্থাপক সবাই বাংলাদেশি। মো. ইউনুস জানান, কথা ও কাজ ঠিক থাকলে, চেকেও প্রবাসীদের ব্যবসার সুযোগ বেশ। তিনি বলেন, চেকে পড়াশোনা, চাকরি বা ব্যবসা সবকিছুরই সুযোগ সুবিধা রয়েছে।

সম্প্রতি চেকসহ বলকান অঞ্চল সফর করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। এসব দেশে তৈরি পোশাকের বাজার তৈরি করতে চাইছে সরকার। ইউনুসের চোখও দেখছে সেই সম্ভাবনা। তিনি বলেন, অস্ট্রিয়ার মানুষ ফ্যাশন সচেতন, আর তাই এদেশে তৈরি পোশাকের বাজার বেশ ভাল।

ইউরোপের ঠিক মাঝখানে অবস্থান অস্ট্রিয়ার। মূলত জার্মানিতে রপ্তানি হওয়া বাংলাদেশি পণ্যই পাওয়া যায় এখানে। এই দেশে তৈরি পোশাকের পাশাপাশি আইটি, চামড়াজাত পণ্য, হিমায়িত খাদ্য ও ওষুধের রয়েছে বড় বাজার।

অস্ট্রিয়ান পিপলস পার্টির প্রবাসি রাজনীতিবিদ মাহমুদুর রহমান নয়ন বলছেন, বাণিজ্য বাড়াতে সরকারের পাশাপাশি দুই দেশের শিল্প প্রতিষ্ঠানের মধ্যেও সম্পর্ক গড়তে হবে।

কয়েকবছর ধরে বাংলাদেশি গার্মেন্টসের জন্য নতুন নতুন বাজার খুজছে সরকার। মধ্য ইউরোপের দেশগুলোতে যেসব বাংলাদেশিরা রয়েছেন, শুধু গার্মেন্টস না অন্যান্য ক্ষেত্রেও ব্যবসা বাণিজ্যে এই দেশগুলো একটি নতুন গন্তব্য হতে পারে।

এএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *