বুধবার ৮, ডিসেম্বর ২০২১
EN

দেশ বরেণ্য আলেমদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার প্রতিবাদ জামায়াতের

ভাস্কর্য বিরোধী বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে দেশ বরেণ্য আলেমদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দায়েরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেলারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান।

ভাস্কর্য বিরোধী বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে দেশ বরেণ্য আলেমদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দায়েরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেলারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান।

মঙ্গলবার (০৮ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি বলেন, “ভাস্কর্য ও মূর্তি বিরোধী বক্তব্য দেয়ার কারণে দেশ বরেণ্য আলেমে দ্বীন হেফাজতে ইসলামের আমীর মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মাদ মামুনুল হক এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর সৈয়দ ফয়জুল করিমের বিরুদ্ধে ৭ ডিসেম্বর রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করা হয়েছে। একই সময়ে মাওলানা মামুনুল হককে আসামি করে আরো একটি মামলা করা হয়েছে। আমরা দেশ বরেণ্য এসকল আলেমে দ্বীনের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।”

মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান বলেন, “শতকরা ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে মূর্তি ও ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে কথা বলার অভিযোগে দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমদের নামে মামলা দায়েরের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। ভাস্কর্য ও মূর্তি নির্মাণকে ইসলামী শরিয়তে চরমভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। দেশের আলেম, ওলামা ও আপামর মুসলিম জনতা ভাস্কর্য ও মূর্তির বিরুদ্ধে তাদের অবস্থান তুলে ধরেছে। দেশবাসীর প্রত্যাশা ছিল মুসলিম জনতা ও ইসলামী শরীয়তের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে ভাস্কর্য নির্মাণের মত গর্হিত কাজ থেকে সরকার বিরত থাকবেন। কিন্তু উল্টো দেশ বরেণ্য আলেমদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে অন্যায় করা হয়েছে। আমরা মনে করি ইসলাম ও ইসলামী রাজনীতির বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে শুধুমাত্র রানৈতিকভাবে হয়রানি করার হীন উদ্দেশ্যে তাদের বিরুদ্ধে এসকল মামলা দায়ের করা হয়েছে।”

“দেশের শীর্ষস্থানীয় ও দেশবরেণ্য আলেমদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

এমবি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *