শনিবার ২৯, জানুয়ারী ২০২২
EN

দেশী শিল্পে ওয়ালটনের ভুমিকা-পর্ব ১

ওয়ালটন ‘আমাদের পণ্য’ এই মন্ত্রকে ধারণ করে এগিয়ে চলছে। ছড়িয়ে দিচ্ছে বিশ্বময় ‘Made in Bangladesh’কে। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও কর্মসংস্থানে রাখছে বিশেষ অবদান। দেশের বাজারে সফলতার পর পাড়ি দিয়েছে বিশ্বের দীর্ঘপথ।

ওয়ালটন ‘আমাদের পণ্য’ এই মন্ত্রকে ধারণ করে এগিয়ে চলছে। ছড়িয়ে দিচ্ছে বিশ্বময় ‘Made in Bangladesh’কে। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও কর্মসংস্থানে রাখছে বিশেষ অবদান। দেশের বাজারে সফলতার পর পাড়ি দিয়েছে বিশ্বের দীর্ঘপথ।

ওয়ালটন ১৯৯৪ সালে ইলেকট্রনিক ও ইলেকট্রিক্যাল ব্যাবসা শুরু করেন। প্রতিষ্ঠানটির সদর দপ্তর ঢাকায় অবস্থিত।ওয়ালটন তার সফলতার চাবি হিসাবে ‘উৎপাদন বৈচিত্রতা’ এবং ‘গ্রাহকের চাহিদামত পণ্য উৎপাদনের সক্ষমতা’ কে মনে করে । প্রতিষ্ঠানটি তার উৎপাদন প্রক্রিয়াতে যুক্ত করেছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির বহর।পণ্য তালিকাতে আছে ফ্রিজ, এসি, এলইডি/এলসিডি টেলিভিশন,মটরসাইকেল,মোবাইল ফোন সহ অনেক পণ্য ।

বর্তমানে ১৭টি দেশে পণ্য রপ্তানী করছে এবং ২০২০ সালের মধ্যে সারাবিশ্বে  ছড়িয়ে পড়তে কাজ করছে বাংলাদেশের এই প্রতিষ্ঠানটি। iso সনদপ্রাপ্ত ওয়ালটন প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ভাবে ২১,০০০ হাজারের ও বেশি কর্মীর এক বিশাল পরিবার। রয়েছে ৪০০০ হাজার প্লাজা, ডিলার ও পরিসেবা পয়েন্ট।

দেশীও এই প্রতিষ্ঠানটি অর্জন করেছে দেশী-বিদেশী অনেক পুরুস্কার । দেশের ক্রীড়া ও কৃষ্টি-কালচার বিকাশে ওয়ালটন রেখে চলছে এক অনবদ্য ভুমিকা।  চলবে.......

নাজিব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *