রবিবার ২, অক্টোবর ২০২২
EN

'নিজামীর বিরুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যার অভিযোগ অস্পষ্ট'

মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াত আমির মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যার অভিযোগ অস্পষ্ট দাবি করেছেন আইনজীবী মিজানুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার চেয়ারম্যান বিচারক এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্রথম আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল যুক্তি গ্রহণ করেন

মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াত আমির মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যার অভিযোগ অস্পষ্ট দাবি করেছেন আইনজীবী মিজানুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার চেয়ারম্যান বিচারক এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্রথম আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল যুক্তি গ্রহণ করেন। যুক্তিতে মিজানুল ইসলাম বলেন, নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬তম অভিযোগ বুদ্ধিজীবী হত্যার বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষ নির্দিষ্ট কোনো ঘটনার বর্ণনা করেনি। এমনকি এই অভিযোগ গঠনটিও সঠিকভাবে হয়নি। তিনি বলেন,এই অভিযোগে তদন্তকারী কর্মকর্তা কোনো রিপোর্ট দাখিল করেনি। তাছাড়া বুদ্ধিজীবী হত্যা সংক্রন্ত তৎকালীণ পূর্ব পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর জেনারেল, ঠাণ্ডা মাথার খুনি হিসেবে পরিচিত রাও ফরমান আলীর ‘চিরকুট’ টি দাখিল করা হয়নি। তিনি বলেন, একাত্তরে অনেক লোক সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত ছিলেন। তারা বুদ্ধিজীবী হত্যার বিষয়টি ভাল জানেন। এই অভিযোগে কোনো সাংবাদিককে সাক্ষী করা হয়নি। সব মিলিয়ে নিজামীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগটি অস্পষ্ট। মিজানুল ইসলাম বলেন, রাষ্ট্রপক্ষের ১৬তম সাক্ষীর সাক্ষ্যকে কাল্পনিক, মিথ্যা এবং অবাস্তব। আমরা বোকার অথবা বোকার স্বর্গে বাস করি না। যে যা সাক্ষী দিবে আর আমরা তাই বিশ্বাস করব। আজ মিজানুল ইসলাম নিজামীর পক্ষে ১ থেকে ১২তম অভিযোগের যুক্তি খণ্ডন করেন। এরপর মামলার কার্যক্রম আগামী ২৩ মার্চ পর্যন্ত মুলতবি করেন। আগামী রোববার তাজুল ইসলাম যুক্তি উপস্থাপন করবেন। ওই দিন আসামিপক্ষের যুক্তি শেষে রাষ্ট্রপক্ষ কিছু সময় আইনী বিষয়ে যুক্তি দেবেন। আসামিপক্ষে ছিলেন মিজানুল ইসলাম, তারিকুল ইসলাম, তাজুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন মোহাম্মদ আলী, জেয়াদ আল মালুম, সৈয়াদ হায়দার আলী, তুরিন আফরোজ, সুলতান মাহমুদ সীমন। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ট্রাইব্যুনাল নতুনভাবে নিজামীর মামলায় যুক্তি উপস্থাপনের নির্দেশ দেন। প্রায় সাড়ে তিন মাস নিজামীর মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান থাকার পর নতুন ভাবে যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়। প্রথম ট্রাইব্যুনালে নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ হওয়ায় নিজামীর মামলায় নতুন করে যুক্তি শুরু হয়। এর আগে জামায়াত নেতা সাঈদীর মামলায় প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় ধাপে যুক্তি উপস্থাপন করা হয়েছিল। গত ২০ নভেম্বর নিজামীর মামলাটি যে কোন দিন রায় ঘোষণা (সিএভি)  করা হবে বলে অপেক্ষমাণ রাখেন। গত বছরের ২৬ আগস্ট থেকে ৮ অক্টোবর র্পযন্ত নিজামীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের ২৬ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেন। ২০১১ সালের ১১ ডিসেম্বর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন রাষ্ট্রপক্ষ। গত বছরের ৯ জানুয়ারি অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল। গত বছরের ২৮ মে নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। ২০১০ সালের ২৯ জুন ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অভিযোগে মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২০১০ সালের ২ আগস্ট নিজামীকে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। [b]ঢাকা, জিই, ২০ মার্চ (টাইমনিউজবিডি.কম) // এআর[/b]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *