বুধবার ১, ফেব্রুয়ারি ২০২৩
EN

পাকিস্তানের জাতীয় গ্রীডে বিপর্যয়, বিদ্যুৎহীন বেশিরভাগ অঞ্চল

পাকিস্তানের জাতীয় গ্রীডে বিপর্যয়ে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে বেশিরভাগ অঞ্চল। স্থানীয় সময় সোমবার সকাল থেকেই অন্ধাকারে পড়ে যায়।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ট্রান্সমিশন লাইনে ত্রুটির কারণে সোমবার দেশটির বিভিন্ন অংশে বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটেছে। পাকিস্তান ইতোমধ্যেই বিদ্যুতের ঘাটতিতে রয়েছে। বিদ্যুৎ বাঁচাতে রাত ৮টার মধ্যে সব মার্কেট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

সংবাদমাধ্যমের তথ্যানুসারে, কোয়েটা, ইসলামাবাদ, লাহোর, পেশোয়ার এবং করাচিসহ বেলুচিস্তানের ২২টি জেলা বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়েছে। লাহোরের মল রোড, ক্যানাল রোড এবং অন্যান্য এলাকার মানুষ বিদ্যুতের সংকটে পড়েছেন।

দেশটির বিদ্যুৎ বিভাগ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এদিন সকাল ৭টা ৩৪ মিনিটে জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয় ঘটেছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে অন্তত ১২ ঘণ্টা সময় লাগতে পারে।

এদিকে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে দেশটির মেট্রো পরিষেবাও ব্যাহত হচ্ছে। ফলে বিড়ম্বনায় পড়েছেন যাত্রীরা। ইসলামাবাদ ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানির ১১৭টি গ্রিড স্টেশনেও বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হয়েছে। এতে ইসলামাবাদ শহর এবং রাওয়ালপিন্ডি অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়েছে।

পাকিস্তানের বিদ্যুৎ ও জ্বালানিমন্ত্রী খুররম দস্তগীর জিও নিউজকে বলেছেন, অর্থনৈতিক সংকটের কারণে জ্বালানি খরচ বাঁচাতে শীতকালে রাতে বিদ্যুৎ উৎপাদন ইউনিটগুলো সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘আজ (সোমবার) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে যখন সিস্টেমগুলো একে একে চালু করা হয়, তখন দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জামশোর এবং দাদুর মধ্যে ফ্রিকোয়েন্সি পরিবর্তনের খবর পাওয়া গেছে। ভোল্টেজ ওঠা-নামায় একের পর এক বিদ্যুৎ উৎপাদন ইউনিট বন্ধ হয়ে যায়। তবে এটি বড় কোনো সংকট নয়।’

দস্তগীর আরও বলেন, পেশোয়ার এবং ইসলামাবাদে গ্রিড স্টেশন পুনরুদ্ধার শুরু হয়েছে। তার ভাষায়, ‘আমি আপনাকে আশ্বস্ত করতে পারি যে আগামী ১২ ঘণ্টার মধ্যে সারা দেশে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা পুরোপুরি চালু করা হবে।

এইচএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *