সোমবার ১৭, জানুয়ারী ২০২২
EN

ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সর্বাধিনায়ক বিমান দুর্ঘটনায় নিহত

ভারতীয় বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ভারতের প্রথম চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত। এ দুর্ঘটনায় তার স্ত্রীসহ ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ভারতীয় বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ভারতের প্রথম চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত।

এ দুর্ঘটনায় তার স্ত্রীসহ ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। অপর মাত্র একজন মারাত্মক আহত অবস্থায় এখনো জীবিত রয়েছেন।

ভারতের বিমান বাহিনী (আইএএফ) এক টুইটে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

আজ বুধবার ( ৮ ডিসেম্বর) তামিলনাড়ুতে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। সূত্র : এনডিটিভি।

ভারতের বিমান বাহিনী বলেছে, হেলিকপ্টারটি আজ বুধবার ( ৮ ডিসেম্বর) তামিলনাড়ুর নীলগিরিতে বিধ্বস্ত হয়।  বিমান বাহিনী টুইট করে এ কথা নিশ্চিত করেছে।

সূত্র হতে জানা যায়, হেলিকপ্টারটিতে ছিলেন সিডিএস জেনারেল বিপিন রাওয়াত, তার স্ত্রী মাধুলিকা রাওয়াত, ব্রিগেডিয়ার এলএস লিড্ডার, লেফটেন্যান্ট কর্নেল হারজিন্দার সিং, এনকে গুরসেওয়াক সিং, এনকে জিতেন্দ্র কর, ল্যান্স নায়েক বিবেক কুমার, ল্যান্স নায়েক বি সাই তেজা এবং হাবিলদার সাতপাল।

জেনারেল বিপিন রাওয়াত দিল্লি থেকে একটি ফ্লাইটে সেলুর-এ যান। ওই ফ্লাইটে ৯ জন উপস্থিত ছিলেন।

বিমান বাহিনীর টুইটে বলা হয়েছে, ভারতীয় বিমান বাহিনীর এমআই-১৭ভি৫ হেলিকপ্টারটিতে সিডিএস জেনারেল বিপিন রাওয়াত ছিলেন।

হেলিকপ্টারটি আজ তামিলনাড়র কুনুরের কাছে দুর্ঘটনায় পতিত হয়। এর কারণ উদঘাটনে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে নীলগিরিতে। কয়েম্বাটোরের সেলুর সামরিক ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের অল্প পরেই এমআই-সিরিজের ওই হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়।

নীলগিরির ওয়েলিংটনে অবস্থিত ডিফেন্স স্টাফ সার্ভিসেস কলেজে যাচ্ছিল এটি। ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, পাহাড়ি এলাকায় হেলিকপ্টারটির ধ্বংসস্তূপ ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। সেখানে উদ্ধার অভিযানে রয়েছেন কর্মীরা।

ঘন ও গাঢ় ধোয়া উড়ছে। গাছের ওপর দিয়ে আগুন দেখা গেছে। স্থানীয় লোকজন এবং পুলিশ সদস্যরা মৃতদেহগুলো সরিয়ে নিয়েছেন।

গত ২০১৯ সালে ভারতের প্রথম চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ হিসেবে জানুয়ারিতে দায়িত্ব নেন ৬৩ বছর বয়সী জেনারেল রাওয়াত। ভারতের তিন বাহিনী- সশস্ত্র বাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীকে সমন্বিত করে ওই পদ সৃষ্টি করা হয়।

পরে তাকে নবসৃষ্ট ডিপার্টমেন্ট অব মিলিটারি অ্যাফেয়ার্সের প্রধান নিয়োগ করা হয়। আজকের দুর্ঘটনা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংকে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, রাশিয়ায় তৈরি এই সামরিক হেলিকপ্টারটি এমআই-৮-এর উন্নততর সংস্করণ।

এই হেলিকপ্টারের বিশেষত্ব হল এর ইঞ্জিন অনেক বেশি শক্তিশালী। অধিক ভার বহনে সক্ষম। রাতের অন্ধকারে গতিবিধি এবং উন্নততর নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য সুনাম রয়েছে এই কপ্টারের।

২০০৮ সালে রাশিয়ার কাজান হেলিকপ্টার সংস্থা এই কপ্টার তৈরির বরাত পায়।

২০১১ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে ভারতে মোট ৩৬টি কপ্টার সরবরাহ করে এই রুশ সংস্থা।

২০১৩ সালে অপারেশন গ্রিন হান্টে কাজ লাগানো হয় ভি৫।

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *