রবিবার ৩, জুলাই ২০২২
EN

ভাষা শহীদ বরকত পরিবারকে অত্যাচারের অভিযোগ

ভাষা শহীদ আবুল বরকতের পরিবারের সদস্যদের কাছে চাঁদা দাবি ও হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. সফর আলীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ভাষা শহীদ আবুল বরকতের পরিবারের সদস্যদের কাছে চাঁদা দাবি ও হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. সফর আলীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ দায়ের করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে শহীদ বরকতের ভাইপো আইন উদ্দিন বরকত গাজীপুর জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত আবেদন জানিয়েছেন। গাজীপুরের পুলিশ সুপারের নিকটও এর একটি অনুলিপি দেয়া হয়েছে। আইন উদ্দিন বরকত জানান,১৯৮১ সালে তৎকালীন সরকারের আমলে গাজীপুরের নলজানি মৌজায় কাচারীবাড়ির ৬৮ শতাংশ জমি দাদী শহীদ বরকতের মা হাজী হাসিনা বিবির বরাবর ২ টাকার স্ট্যাম্পে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত দেওয়া হয়। তৎকালীন ভূমিমন্ত্রী,স্থানীয় সাংসদ ও মহকুমা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা তাকে ওই বাড়ির দখল বুঝিয়ে দেন। ১৯৮১ সালের ২১ এপ্রিল হাসিনা বিবি মারা যান। সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক ওই জমিতেই তাকে দাফন করা হয়। তার মৃত্যুর পর তার ওয়ারিশরা তাদের নামে এসএ (সাবেক দাগে) নামজারি ও জমাভাগ করেন। এরপর শহীদ বরকতের জীবিত উত্তরাধিকারীরা সেখানে ভোগ-দখলে আছেন। এই জমিতে দোকানপাট দিয়ে সংসার চালায় শহীদ পরিবার। সম্প্রতি সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওই জমির আরএস দাগে নামজারি জমাভাগের প্রস্তাব করা হলে কাউন্সিলর মো. সফর আলী তাতে বাধা দেন এবং জমির রকম পরিবর্তনের অভিযোগ এনে জেলা প্রশাসক ও সহকারী কমিশনার (ভূমি)  বরাবর নামজারি জমাভাগ না করতে আবেদন ও মিসকেস জমা করেন। অপরদিকে ওই মিসকেস তুলে নেওয়ার শর্তে ওই কাউন্সিলর বিভিন্ন সময় তার লোক মারফত তাদের কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করেন এবং তাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে শুরু করেন। আইন উদ্দিন বরকত জানান,গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলর (১৭নং ওয়ার্ড) হাজী মেহেদী হাসান ফারুক নামজারির প্রয়োজনে প্রদান করা ওয়ারিশ সনদে ভোগ-দখলকারীদের হাসিনা বিবির ওয়ারিশ বলে নাম উল্লেখ রয়েছে। ২০০০ সনে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শহীদ বরকতকে যে মরণোত্তর ২১শে পদক প্রদান করেন তা যাচাই-বাছাই করে তার ওয়ারিশ বরকতের বড় ভাতিজা আলাউদ্দিন বরকতের কাছে হস্তান্তর করেন। স্থানীয় প্রসাশন কর্তৃক যাচাই-বাছাইয়ের পরও এসব হচ্ছে । এমতাবস্থায় পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতায় মধ্যে দিন যাপন করছেন বলে জানিয়েছেন। এ ব্যপারে তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। [b]ঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি ( টাইমনিউজবিডি.কম ) // কেএইচ [/b]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *