সোমবার ৬, ডিসেম্বর ২০২১
EN

মাহবুব তালুকদারের মন্তব্য শালীনতা বহির্ভুত: সিইসি

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের সময় হতাহতের ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের উৎকণ্ঠার বিষয়টি আওয়ামী লীগ অবহিত বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের সময় হতাহতের ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের উৎকণ্ঠার বিষয়টি আওয়ামী লীগ অবহিত বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

ইউপি ভোট নিয়ে কমিশনের সদস্য মাহবুব তালুকদারের মন্তব্যকে শালীনতা বহির্ভুত বলেও অভিযোগ করেন সিইসি। কারও অনুপস্থিতিতে মন্তব্য করা উচিত নয় উল্লেখ করে সিইসি বলেন, প্রায়ই তিনি সাংবাদিকদের ডেকে এভাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। কেন করেন, কী কারণে করেন, তা জিজ্ঞাসাও করি না। তার কাছে জানতেও চাই না। কিন্তু তিনি যে শব্দগুলো ব্যবহার করেছেন, এগুলো শালীনতা বহির্ভুত।

ইউপি ভোটে সহিংসতার বিষয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে যোগাযোগের বিষয়ে সিইসি বলেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে পৃথক বৈঠক হয় না। কিন্তু তাদের বার্তা দেওয়া হয়। তারা জানে ইসির উৎকণ্ঠা রয়েছে। পরিস্থিতি যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে, সেই বার্তা দেওয়া আছে।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি নূরুল হুদা বলেন, দলীয় লোকজন বঞ্চিত থাকার কারণে এ রকম হতে পারে। এ রকম বিশ্নেষণ সাংবাদিকদের মাধ্যমে আসতে পারে। গণমাধ্যমে এটা দেখা গেছে। তবে ইসির নিজস্ব কোনো বিশ্নেষণ নেই।

এসব ঘটনায় বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে উল্লেখ করে সিইসি বলেন, অস্ত্রের ব্যবহারের বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। এর আগে লিখিত বক্তব্যে ইউপি ভোটে আধিপত্য বিস্তার, বংশীয় প্রভাব, ব্যক্তিগত শুত্রুতা, রাজনৈতিক কোন্দলে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেন সিইসি

তিনি বলেন, গণমাধানের খবর অনুযায়ী, সারাদেশে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। তবে এসব প্রাণহানির ঘটনার সবগুলো নির্বাচনী সংঘর্ষের কারণে হয়েছে কি-না, তা অনুসন্ধানের দাবি রাখে। এরমধ্যে মাত্র কয়েকটি ঘটনা ভোটকেন্দ্রে বা ভোটের দিন ঘটেছে। কোনো ঘটনা নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগেই ঘটেছে, আবার কোনোটা রাতের আঁধারে ঘটেছে। এসব হত্যার মোটিভ কি, তা তত্ত্বের বিষয়।

সিইসি বলেন, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন কেন্দ্র করে গণমাধ্যমে বিভিন্ন খবর প্রকাশিত হচ্ছে। কোনো কোনো খবরে জনমানুষের মধ্যে বিভ্রান্তির সুযোগ সৃষ্টি হতে পারে বলে ইসির কাছে প্রতীয়মান হয়েছে।

তিনি বলেন, নির্বাচনের সময়ে নরসিংদীর রায়পুরের একটি দুর্গম চর এলাকায় হতাহতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। গণমাধ্যমে এসেছে গত ১০ বছরে আধিপতা বিস্তারের নামে নরসিংদীর চরাঞ্চলগুলোতে দুই শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কয়েক হজার। নরসিংদীতে এবারের প্রথম ঘটনাটি ঘটে ৪ নভেম্বর নির্বাচনের ৫ দিন আগে। দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটে নির্বাচনের দিন ভোরে ভোট শুরু হওয়ার আগে।

তিনি আরও বলেন, মাগুরার হতাহতের ঘটনা প্রতীক বরাদ্দের আগে ঘটেছে। যা ছিল এলাকার প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে। মেহেরপুরের গাংনীর ঘটনার পেছনে বংশগত আধিপত্য বিস্তারই মূল কারণ বলে গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে। মেহেরপুরের ঘটনা ঘটেছে নির্বাচনের দিন ভোর রাতে। সংঘর্ষ চলাকালে উচ্ছৃঙ্খল লোকজনকে দেশি অস্ত্র সহকারে মহড়া দিতে দেখা গেছে। তাদের চিহ্নিত করে বিচারের সম্মুখীন করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার গত রোববার চলমান ইউপি ভোট নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছিলেন, নির্বাচন এখন ‘আইসিইউতে’। এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে গণতন্ত্র এখন ‘লাইফসাপোর্টে’। দেশে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর অসহিষ্ণু মনোভাব গণতন্ত্রকে অন্তিম অবস্থায় নিয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, বৈঠকের আগে আমরা সবাই হোমওয়ার্ক করে যাই। কী বলব, তা চিন্তাভবনা করে যাই। মাহবুব সাহেব কিন্তু চিন্তাভাবনা করে যান না। তিনি একটি শব্দ চয়ন করার জন্য ৭ থেকে ৮দিন ব্যয় করেন। কোন শব্দটা দিলে আমাকে এ রকম প্রশ্ন করবেন। যেমন আইসিউতে। তিনি অনেক ঘেঁটে এই শব্দগুলো বের করে একদিন আপনাদের সামনে ছেড়ে দেন। এটা হলো তার পছন্দ। এটা করলে তো আমাদের কিছু করার নেই। আমাদের কমিশনাররা তাকে বার বার বলেছেন, আমরা একসঙ্গে কাজ করি। আমাদের কাজ হলো কীভাবে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করা যায়। মানুষের আশা আকাঙ্ক্ষা কীভাবে পূরণ করা যায়, তা দেখা উচিত। কিন্তু তিনি প্রথম থেকেই এটা করে আসছেন। একজন মাননীয় কমিশনার, উনি তো যে কোনো কথা বলতে পারেন। এ ক্ষেত্রে আমাদের তো কিছু করার নেই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম, নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন, ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।

এমআর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *