মঙ্গলবার ৭, ডিসেম্বর ২০২১
EN

যুক্তরাষ্ট্রে আলোচিত কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার রায়, ৩ শ্বেতাঙ্গকে দোষী সাব্যস্ত

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জর্জিয়া রাজ্যের ব্রাউন্সউইকে ২৫ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ আহমাদ আরবেরিকে হত্যায় অভিযুক্ত তিনজন শ্বেতাঙ্গ পুরুষকে একাধিক খুনসহ অন্যান্য অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালতের জুরি।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জর্জিয়া রাজ্যের ব্রাউন্সউইকে ২৫ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ আহমাদ আরবেরিকে হত্যায় অভিযুক্ত তিনজন শ্বেতাঙ্গ পুরুষকে একাধিক খুনসহ অন্যান্য অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালতের জুরি।

আদালতের এই জুরিতে ৯জন শ্বেতাঙ্গ নারী, দুইজন শ্বেতাঙ্গ পুরুষ এবং একজন কৃষ্ণাঙ্গ পুরুষ ছিলেন। দুই দিন ধরে ১১ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে আলোচনার পর তাদের এই রায় এসেছে।

দীর্ঘকালীন বিচার-পর্বে জুরি, বিবাদী পক্ষ এবং রাষ্ট্রীয় আইনজীবীদের পরস্পর-বিরোধী বক্তব্য শোনেন। এতে ২৩ জন সাক্ষ্য দেন।

দোষীরা হলেন, আমেরিকান শ্বেতাঙ্গ ৬৫ বছর বয়সী গ্রেগরি ম্যাকমাইকেল, তার ছেলে ট্রাভিস ম্যাকমাইকেল এবং প্রতিবেশী ৪২ বছর বয়সী উইলিয়াম রোডি ব্রায়ান।

রায়ের পর আরবেরির বাবা-মা আদালতের বাইরে নাগরিক অধিকারের নেতাদের সঙ্গে হাজির হন। তারা প্রসিকিউশন এবং সমর্থকদের প্রশংসা করেন। যারা তাদের ছেলের জন্য ন্যায়বিচারের লড়াইয়ে পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

প্রধান অভিশংসক লিন্ডা দুনিকস্কী বলেন, “তারা আহমেদ আরবেরিকে তাদের ড্রাইভওয়েতে হামলার সিদ্ধান্ত নেন।

কারণ, তিনি ছিলেন একজন কৃষ্ণাঙ্গ এবং রাস্তায় দৌড়াচ্ছিলেন। যুক্তি খণ্ডনে দুনিকস্কী আসামি পক্ষের বিশ্বাসযোগ্যতা এবং যৌক্তিকতা বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন যে, ২৫ বছর বয়সী আরবেরি তাদের জন্য কোন ঝুঁকির কারণ ছিলো না।

তিনি জানান, “তাদের জন্য তিনি হুমকিস্বরূপ হতে পারেন সেজন্য তারা তাকে হত্যা করেনি। তার সঙ্গে কোনো অস্ত্র ছিল না, কোনো হুমকি ছিল না, সাহায্যের জন্য তার কাউকে ডাক দেওয়ার উপায়ও ছিল না। আরবেরি প্রায় ৫ মিনিটের মতো ছুটে পালিয়েছিলেন”।

হত্যা ও আক্রমণ ছাড়াও, অপহরণের প্রচেষ্টা চালানো এবং আরবেরিকে জাতিগতভাবে চিহ্নিত করার মতো রাষ্ট্রীয় ঘৃণা- অপরাধের জন্য জর্জিয়ার এই ৩ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

আসামি পক্ষের হয়ে একমাত্র ছোট ম্যাকমাইকেল সাক্ষ্য দিতে আদালতে দাঁড়ান। তিনি আদালতকে জানান, আত্মরক্ষার জন্য অত্যন্ত কাছে থেকে শটগান দিয়ে গুলি ছোড়েন তারা।

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *