শুক্রবার ৩, ফেব্রুয়ারি ২০২৩
EN

যেকোন দূর্যোগে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার জন্য জামায়াতের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে: নূরুল ইসলাম বুলবুল

আজ শুক্রবার (১২ নভেম্বর) ২০২১ সকালে রাজধানীর ডেমরা এলাকায় ভিন্নধর্মাবলম্বী মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর জননেতা নূরুল ইসলাম বুলবুল দেশে চলমান শীত মৌসুমের কথা চিন্তা করে দল-মত-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে অসহায় মানুষের জন্য শীতবস্ত্র সহ শীতের এই সময়ে নানা প্রয়োজনীয় উপকরণ বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

শীতবস্ত্র বিতরণ (DCS 12 Nov 2021) (2).JPG

এসময় তিনি জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের পক্ষ থেকে শতাধিক হিন্দু-বৌদ্ধ ভিন্নধর্মাবলম্বী অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার প্রদান করেন।

আজ শুক্রবার (১২ নভেম্বর) ২০২১ সকালে রাজধানীর ডেমরা এলাকায় ভিন্নধর্মাবলম্বী মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

শীতবস্ত্র সহ শীতের এই সময়ে নানা প্রয়োজনীয় উপকরণ বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহকারী সেক্রেটারি মুহা. দেলাওয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুস সবুর ফকির, অধ্যাপক মোকাররম হোসাইন খান।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডেমরা উত্তর থানা আমীর মোহাম্মদ আলী, পল্টন থানা সেক্রেটারি শাহীন আহমদ খান, মাওলানা আবুল বাশার সহ জামায়াতে ইসলামীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেন, ইসলাম এমন একটি ছাতা যার নিচে দল মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষ আশ্রয় নিতে পারে। যেখানে সব মানুষের অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়।

যেখানে ধর্মীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। যেখানে খাবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। সেখানে সামগ্রীক ভাবে মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়।

দেশে ভোট বা নির্বাচন আসলে পরিকল্পিত ভাবে একটি পক্ষ সব সময় হিন্দু ও অন্য ধর্মের মানুষের উপরে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করার মাধ্যমে তার দায় জামায়াতের উপরে চাপিয়ে দিতে চায়।

অথচ সারাবছর সুবিধাভোগী সেসব পক্ষের নেতাদের ভিন্নধর্মাবলম্বী মানুষের পাশে থাকার কোন প্রয়োজন পড়ে না।

অন্যদিকে বিশেষ সময়ে এসব ক্ষমতালোভী পক্ষের ভাব দেখে মনে হয় হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ভিন্নধর্মাবলম্বী মানুষের জন্য একটি দল-ই দেশে সব করে এবং তাদেরকেই ক্ষমতায় বসাতে হবে।

কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, যা পরবর্তীতে প্রমাণিতও হয়, ভিন্নধর্মাবলম্বীদের উপরে যেকোন নির্যাতন সহ ন্যাক্কারজনক ঘটনার পিছনে ঐ সব পক্ষের লোকজনই জড়িত থাকে।

আর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে জড়িয়ে মিথ্যাচার করা হয়। অন্যদিকে এসব ঘটনায় জামায়াতের কারো নূন্যতম সম্পর্ক নেই এটাই সত্য হিসেবে তখন জনগণ বুঝতে সক্ষম হয়।

নূরুল ইসলাম বুলবুল আরও বলেন, জামায়াতে ইসলামী দেশের সকল মানুষের কল্যাণে কাজ করে।

সেই ধারাবাহিকতায় যেকোন দূর্যোগে দল মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের পাশে জামায়াতে ইসলামীর সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

স্বাধীন সার্বভৌম দেশের মানুষের প্রতি ইসলামের প্রকৃত দৃষ্টিভঙ্গিই আমরা সবসময় লালন করে থাকি। আমরা সকল ধর্মাবলম্বী মানুষের সুখে-শান্তিতে বসবাসের জন্য একটি নিরাপদ দেশ চাই, যেখানে রাষ্ট্রের নাগরিকদের মধ্যে কোন বৈষম্য ও ভেদাভেদ থাকবেনা।

তিনি দেশপ্রেমের চেতনাকে সমুন্নত রাখতে এবং মানুষের প্রকৃত চাওয়া স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য অর্থনৈতিক মুক্তির পাশাপাশি সকল বৈষম্য মুক্ত ন্যায় ও ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় জামায়াতে ইসলামীর পতাকাতলে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

এইচএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *