শনিবার ২৯, জানুয়ারী ২০২২
EN

রাজধানীতে বন্ধুর বাসায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ

গ্রুপ স্টাডির কথা বলে ডেকে নিয়ে বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) রাজধানীর কলাবাগানে ধর্ষণের পর রক্তক্ষরণে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত ওই শিক্ষার্থী মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলে পড়তো। মূল অভিযুক্তসহ ৪ কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দোষীদের শাস্তি দাবি করেছেন নিহতের স্বজনরা।

গ্রুপ স্টাডির কথা বলে ডেকে নিয়ে বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) রাজধানীর কলাবাগানে ধর্ষণের পর রক্তক্ষরণে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত ওই শিক্ষার্থী মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলে পড়তো। মূল অভিযুক্তসহ ৪ কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দোষীদের শাস্তি দাবি করেছেন নিহতের স্বজনরা।

বুকফাটা আর্তনাদে মায়ের মুখে বিচারের দাবি। প্রিয় সন্তানের সঙ্গে হওয়া এমন ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি চান তিনি।

স্কুলছাত্রীর মা বলেন, 'আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাই। আমি ফাঁসি চাই ওদের।'

ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী রাজধানীর ধানমণ্ডির মাস্টারমাইন্ড স্কুলের 'ও' লেভেলের শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে গ্রুপ স্টাডির কথা বলে তাকে অভিযুক্তের কলাবাগানের ডলফিন গলির বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। ধর্ষণের পর রক্তক্ষরণ হলে নির্যাতিতাকে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে নিয়ে যান অভিযুক্ত নিজেই। এরমধ্যেই স্বজনদের কাছে খবর আসে, মারা গেছেন ওই শিক্ষার্থী।

স্কুলছাত্রীর কাজিন বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে পেরেছি যে ওদের রিপোর্ট অনুযায়ী ওকে ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষণের পর প্রচণ্ড রক্তক্ষরণের পরে তার মৃত্যু হয়েছে। তার যে সহপাঠী ছিল তারাই ওকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। তখন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুলিশে খবর দেয়।

নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে। চিকিৎসকের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই মৃত্যু হয়েছে ওই শিক্ষার্থীর।

নিউমার্কেট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার আবুল হাসান বলেন, ছেলের পরিবারের যারা ছিল, তারা কেউই বাসায় ছিল না। ছেলেটি একা বাসায় ছিল। কলাবাগানের ডলফিন গলির ওই বাসার দ্বিতীয় তলা থেকে আমরা প্রয়োজনীয় আলামত সংগ্রহ করেছি। আমরা সব দিক খতিয়ে দেখছি যে আসল আসামিকে শনাক্ত করে কঠোর আইনের আওতায় নিয়ে আসতে পারি।

তিনি আরও বলেন, রক্তমাখা কিছু জিনিস পাওয়া গেছে। এসব আমরা আলামত হিসেবে জব্দ করেছি।

এঘটনায় মূল অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। একইসঙ্গে অভিযুক্তের ৩ বন্ধুকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেওয়া হয়েছে।

এমআর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *