মঙ্গলবার ৩০, নভেম্বর ২০২১
EN

লকডাউনে যেসব জিনিস ঘরে রাখবেন

করোনাভাইরাস মহামারি ঠেকাতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। তারই অংশ হলো লকডাউন।

করোনাভাইরাস মহামারি ঠেকাতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। তারই অংশ হলো লকডাউন। সেহেতু লকডাউনের সময়ে কিছু সমস্যায় পড়তে হয়। কারণ অনেক প্রয়োজনীয় জিনিস আনতে বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে। এই সমস্যা এড়ানো সম্ভব যদি আপনি প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো আগেভাগে সংরক্ষণ করে রাখেন। জেনে নিন কোন জিনিসগুলো লকডাউনের সময় সংরক্ষণ করবেন।

মাস্ক রাখুন সংগ্রহেঃ যদিও এখন বাইরে বের হওয়া যাবে না, তবে প্রয়োজনীয়তা দেখা দিতে পারে যেকোনো সময়। অথবা বাড়িতে কেউ অসুস্থ হলেও মাস্ক পরে থাকতে হবে সবাইকে। তাই মাস্ক কিনে রাখুন। অল্প কয়েকটি না রেখে বেশি করে কিনে রাখুন যেন মাস্কের ক্ষেত্রে সংকট দেখা না দেয়। মাস্ক ব্যবহারের পর নিয়ম মেনে তা পরিষ্কার করুন অথবা ফেলে দিন।

খাবার সংরক্ষণ করুনঃ এসময় প্রয়োজনীয় খাবার সংরক্ষণ করুন। শুকনো খাবার যেমন চাল, আটা, ময়দা, ডাল, ছোলা, চিড়া, মুড়ি ইত্যাদি রাখুন অন্তত ১৪ দিনের জন্য। ক্যান বা টিনের কৌটাজাত খাবারও সংরক্ষণ করতে পারেন। ফল ও সবজি কিনে রাখুন অন্তত সপ্তাহ দুইয়ের জন্য। ধুয়ে, কেটে রাখলে ফ্রিজে এঁটে যাবে সহজেই। সকালে সহজ নাস্তা চাইলে ফ্রোজেন ফুড রাখতে পারেন। আলু, পেঁয়াজ, রসুন, আদাসহ বিভিন্ন মশলা রাখুন হাতের কাছে। জুস কিংবা দুধ কেনার আগে তার মেয়াদ দেখে কিনুন। ড্রাই ফ্রুটস রাখতে পারেন যেমন- খেজুর, বিভিন্ন বাদাম, কিশমিশ ইত্যাদি। চা-কফি পানের অভ্যাস থাকলে সেসবও রাখুন বাড়িতে।

 

ওষুধ সংরক্ষণঃ এসময় খাবারের পরেই যে জিনিসটির বেশি দরকার হতে পারে, তা হলো ওষুধ। আপনি যদি নিয়মিত কোনো ওষুধ খেয়ে থাকেন, তবে সেসব ওষুধ কিনে এনে রাখুন। এছাড়াও ফার্স্টএইড বক্সে প্রয়োজনীয় ওষুধ ও সরঞ্জাম রেখে দিন। তবে মনে রাখবেন, কোনো ওষুধই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া খাওয়া ঠিক নয়। তাই নিজেই নিজের চিকিৎসা করতে যাবেন না, বরং ওষুধ খাওয়ার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নেবেন।

স্যানিটাইজার ঃ সংক্রমণ প্রতিরোধে স্যানিটাইজার অন্যতম জরুরি পণ্য। বাড়িতে পর্যাপ্ত স্যানিটাইজার রাখুন। পুরো বাড়ি জীবাণুমুক্ত করতে জীবাণুনাশক কিনে রাখুন। প্রয়োজনীয় সাবান, হ্যান্ডওয়াশ, ডিটারজেন্ট, শ্যাম্পু, টুথপেস্ট সবই রাখুন বাড়িতে। কারণ এখন বারবার বাইরে যাওয়া সম্ভব হবে না। এ ধরনের জিনিসগুলো অবশ্যই শিশুর নাগালের বাইরে রাখবেন।

শিশুর প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রঃ শিশুর চাহিদা বড়দের মতো নয়। তাদের পছন্দের খাবারও তাই অনেকটা আলাদা। সামর্থ্য থাকলে এবং সম্ভব হলে তাদের পছন্দের খাবারগুলোও কিনে রাখুন। শিশুর জন্য দুধ, খাবার, ডায়াপারসহ তার প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কিনে রাখুন। এর বাইরে শিশু অপ্রয়োজনীয় কোনোকিছুর জন্য জিদ করলে তাকে বুঝিয়ে বলুন।

এবিএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *