সোমবার ৮, অগাস্ট ২০২২
EN

সাইবার ক্রাইমে মিথিলার অভিযোগ

অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার ক্রাইম বিভাগে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা।

অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার ক্রাইম বিভাগে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা।

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) অভিনেত্রী মিথিলা এই অভিযোগ দেন।

ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের (সিটিটিসি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম এই তথ্য জানিয়েছেন।

নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘এই ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন রাফিয়াত রশিদ মিথিলা।’

তবে সাইবার ক্রাইমের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘শুনেছি মিথিলার পক্ষে একজন আমাদের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের ডিসি স্যারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। এর বাইরে কিছু জানি না।’

এর আগে মঙ্গলবার এডিসি নাজমুল ইসলাম তাঁর ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, ‘দুজন মানুষের একান্ত ব্যক্তিগত ছবি ভাইরাল করা তাদের স্বাধীনতাকে অবজ্ঞা করা এবং এটা আইনের ব্যত্যয়ও বটে, যা একান্ত ঘৃণাবোধকেই উসকে দেবে এবং এটা জাতি হিসেবে আমাদের অবস্থান উন্নত বলে প্রমাণ করে না।

সম্মানিত নেটিজেনদের আহ্বান জানাব, এটাকে নিয়ে না ঘাটাতে এবং অন্যের ইস্যু নিয়ে কনসার্ন্ড না হয়ে নিজের পরিবারকে সময় দিন। যারা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এই ঘৃণ্য কাজ করছেন আদতে তারা আইনের লঙ্ঘন করছেন।’

সোমবার রাতে ফেসবুকের একটি গ্রুপ থেকে ফাহমি-মিথিলার অন্তরঙ্গ ছবি পোস্ট করা হয়। এরপর রাতে একাধিক ছবি ছড়াতে থাকে।

এসব ছবির বিষয় নিয়ে পরিচালক ইফতেখার আহমেদ ফাহমি ও মিথিলার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে কল করা হলেও তাঁরা রিসিভ করেননি। খুদে বার্তা পাঠালেও উত্তর দেননি। তবে মিথিলা ও ফাহমির অন্তরঙ্গ হওয়ার বিষয়টি বিনোদন অঙ্গনে বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছে।

এর আগে কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে একাধিকবার মিথিলাকে দেখা গেছে। তাঁদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক নিয়েও গুঞ্জন রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি ব্যক্তিগত কোনো বিষয়ে মত প্রকাশ করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

২০০৬ সালের ৩ আগস্ট কণ্ঠশিল্পী ও অভিনেতা তাহসানের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন মিথিলা। এই দম্পতির একমাত্র সন্তান আইরা।

পরে দুজনের বনিবনা না হওয়ায় ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে।

এএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *