শুক্রবার ১, জুলাই ২০২২
EN

সেই ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৪ মার্চ

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) এক ছাত্রীকে অতিরিক্ত মদ খাইয়ে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ৪ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত।

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) এক ছাত্রীকে অতিরিক্ত মদ খাইয়ে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ৪ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা প্রতিবেদন দাখিল না করায় ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসি নতুন এই দিন ধার্য করেন।

গত ২৮ জানুয়ারি বিকাল চারটায় মর্তুজা রায়হান ওই তরুণীকে নিয়ে মিরপুর থেকে আরাফাতের বাসায় যান। সেখানে স্কুটার রেখে আরাফাত, ওই শিক্ষার্থী এবং রায়হান একসঙ্গে ব্যাম্বুসুট রেস্টুরেন্টে যান। সেখানে আগে থেকেই আরেক আসামি নেহা এবং একজন সহপাঠী উপস্থিত ছিলেন। সেখানে আসামিরা ওই তরুণীকে জোর করে ‘অধিক মাত্রায়’ মদপান করান। মদপানের একপর্যায়ে ওই শিক্ষার্থী অসুস্থ বোধ করলে রায়হান তাকে মোহাম্মদপুরে তার এক বান্ধবীর বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে নুহাতের বাসায় নিয়ে যান। সেখানে তরুণীকে ধর্ষণ করেন রায়হান। 

এ সময় রায়হানের বন্ধুরাও কক্ষে ছিলেন। ধর্ষণের পর রাতে ওই তরুণী অসুস্থ হয়ে বমি করলে রায়হান তার আরেক বন্ধু অসিম খানকে ফোন দেন। সেই বন্ধু পরদিন এসে তরুণীকে প্রথমে ইবনে সিনা ও পরে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। দুইদিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর তার মৃত্যু হয়।

এর আগে ৩১ জানুয়ারি ৪ জনকে আসামি করে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় মামলা দায়ের করেন নিহত ছাত্রীর বাবা। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ১ জনকে আসামি করা হয়েছিল।

উত্তরার ব্যাম্বু স্যুটে একসঙ্গে মদ পানের পর মারা যান তাদের আরেক বন্ধু আরাফাত। ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসকরা প্রাথমিকভাবে মতামত দিয়েছিলেন, ভেজাল মদের বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হতে পারে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ডিজে নেহার নাম উঠে আসে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। একই বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশ। ডিজে নেহাসহ আরও কয়েকজন একই মামলায় কারাগারে রয়েছে।

এমআর

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *