শুক্রবার ৩, ফেব্রুয়ারি ২০২৩
EN

সানিয়া-শোয়েব বিচ্ছেদ, নেপথ্যে আয়েশা!

পাকিস্তানি মডেল ও অভিনেত্রী আয়েশা ওমরের সাথে পরকীয়ার জেরে ভারতীয় টেনিশ তারকা সানিয়া মির্জা ও তারকা ক্রিকেটার শোয়েব মালিক দম্পতির বিচ্ছেদ ঘটতে যাচ্ছে বলে গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সানিয়া ও শোয়েবের ঘনিষ্ঠ এক বন্ধু জানিয়েছেন, সানিয়া-শোয়েবের বিবাহ বিচ্ছেদের প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হয়ে গেছে। তবে কবে আনুষ্ঠানিক বিবাহবিচ্ছেদের ঘোষণা দেবেন শোয়েব-সানিয়া তা জানাননি তিনি।

জানা গেছে, ২০১৫ সালে ‘করাচি সে লাহোর’ সিনেমার হাত ধরে অভিনয় জগতে পা রাখেন আয়েশা। ২০১৭ সালে ‘ইয়ালঘর', ২০১৯ সালে ‘নাটক কাফ কঙ্গনা’ ছবিতে অভিনয় করেন আয়েশা। ‘চলতে চলতে’, ‘খামোশি’ নামে দুটি মিউজিক ভিডিওতে দেখা যায় আয়েশাকে। বর্তমানে আয়েশা পাকিস্তানের অন্যতম সর্বোচ্চ আয়কারী অভিনেত্রী।

২০১৯ সালে আয়েশাকে সম্মানিত করে পাকিস্তানের ওয়ার্সি আন্তর্জাতিক সংস্থা তমঘা-ই-ফখর-ই-পাকিস্তান। অভিনয়ের পাশাপাশি সঞ্চালনাও করেন আয়েশা। তাঁর একটি নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলও রয়েছে। তবে ২০২১ সালে একাধিক বোল্ট ফটোশ্যুটে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় দেখা গেছে আয়েশা ও শোয়েবকে। সে সময় শোয়েব বলেছিলেন, ফটোশ্যুটের জন্য আয়েশা তাকে দারুণ সাহায্য করেছেন।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সানিয়া ও শোয়েব। এটি ছিল শোয়েব দ্বিতীয় বিয়ে। ২০১৮ সালে সানিয়া-শোয়েবের ঘর আলো আসে পুত্রসন্তান ইজহান মির্জা মালিক। বর্তমানে মায়ের সঙ্গেই রয়েছে ইজহান। দাম্পত্য জীবনে টানাপোড়েন চলছে। তবে তারকা দম্পতির কেউ-ই এখনও এ ব্যাপারে প্রকাশ্যে মুখ খোলেননি। তবে পাকিস্তানি মিডিয়া জিও টিভি জানিয়েছে, দুজনের মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। আনুষ্ঠানিক ঘোষণাটাও যে কোনো সময় তারা দিয়ে দেবেন।

সূত্রের বরাতে সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, সানিয়া ও শোয়েব টেলিভিশনের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ। এ পরিস্থিতিতে বিবাহবিচ্ছেদ ঘোষণা করলে আইনি সমস্যার মুখে পড়তে হতে পারে তাদের। এ কারণেই তারা এখনই কিছু জানাচ্ছেন না। আইনি সমস্যা মিটলে তার পরে বিবাহবিচ্ছেদ ঘোষণা করবেন তারা।

দুই পরিবারের ঘনিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় মিডিয়া জানাচ্ছে, সানিয়া-শোয়েব একসঙ্গে থাকছেন না। তাদের একমাত্র সন্তান ইজহান মির্জা মালিককে যদিও তারা একসঙ্গেই দেখাশোনা করছেন। শোয়েবের অন্য কোনও নারীর সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে বলে গুঞ্জন। সে কারণেই ১২ বছরের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়। এই গুঞ্জন আরও বেড়েছিল নেটমাধ্যমে সানিয়ার কিছু পোস্টের পর।

ইনস্টাগ্রামে একটি স্টোরিতে সানিয়া লিখেছিলেন, ভাঙা হৃদয় কোথায় যায়? প্রভুকে খুঁজতে। ভারতের অন্যতম সেরা টেনিস তারকা ছেলের সঙ্গে একটি ছবিও পোস্ট করেন। তাতে দেখা যাচ্ছে, ইজহান তাকে চুমু খাচ্ছে। সেই সঙ্গে সানিয়া লিখেছিলেন, যে মুহূর্তগুলো কঠিন সময় পার করে দেয়।

এর পর প্রকাশ্যে আসে শোয়েব মালিকের একটি ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুক পোস্ট। ছেলে ইজহানের জন্মদিনে এই পোস্ট করেছিলেন পাকিস্তানি ক্রিকেটার। সেখানে লেখা ছিল- আমরা সবসময় একসঙ্গে থাকতে পারি না। প্রতিদিন আমাদের দেখাও হয় না। কিন্তু বাবা প্রত্যেক মুহূর্তে তোমার মিষ্টি হাসির কথা মনে করে।

এদিকে, ইমরান মির্জা লিখেছেন, গত কয়েক দিন ধরে আমাদের জীবনের একটি নির্দিষ্ট বিষয়কে নিয়ে প্রকাশ্যে অনেক আলোচনা হচ্ছে, এই ঘটনায় আমি এবং আমার পরিবার বিধ্বস্ত। আংশিক সত্যির ওপর ভরসা করে আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের বিরক্ত করা হচ্ছে। শোয়েব এবং সানিয়া গত ১২ বছর ধরে বিবাহিত জীবন কাটাচ্ছে। বাকিদের মতোই ওদের জীবনেও ওঠানামা রয়েছে। টম, ডিক ও হ্যারির মতো কিছু কিছু ব্যক্তি সেটাকে নিয়ে উত্তেজক কাহিনী তৈরির করার চেষ্টা করছেন, সেটা আমরা সমর্থন করি না।

এন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *