সোমবার ১৭, জানুয়ারী ২০২২
EN

“সাংবাদিক ইউনিয়নের চুরি-অনিয়ম সহ্য করব না”

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নতুন নির্বাচিত সভাপতি আলতাফ মাহমুদ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, সাংবাদিক ইউনিয়নের কোনো চুরি-অনিয়ম সহ্য করা হবে না।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নতুন নির্বাচিত সভাপতি আলতাফ মাহমুদ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, সাংবাদিক ইউনিয়নের কোনো চুরি-অনিয়ম সহ্য করা হবে না। আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিইউজের নতুন নির্বাচিত কমিটির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। আলতাফ মাহমুদ বলেন, ইউনিয়নকে আমি মসজিদ-মন্দিরের সমান মান্য করি। এখানে কোনো অনিয়ম, চুরি সহ্য করা হবে না। যখনি কোনো অনিয়ম দেখবো তার ব্যবস্থা নিতে আমি হাজির হয়ে যাবে। সাংবাদিকদের স্বার্থে কাজ করবো উল্লেখ করে ডিইউজের নতুন সভাপতি বলেন, কোনো সাংবাদিকের জন্য অন্য সাংবাদিকের চাকরি গেলে ইউনিয়ন সহ্য করবে না। তিনি যত বড়ই সাংবাদিক হোক অনিয়ম মানা হবে না। তিনি আরও বলেন, সাংবাদিকদের আবাসন সমস্যা রয়েছে। এ সমস্য সমাধান হতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবাসন সমস্যার সমাধানের দাবি জানানো হয়েছে। আশা করি আগামী দুই বছরের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী এ সমস্যার মোটামুটি সমাধান করবেন। ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেওয়া হবে উল্লেখ করে আলতাফ মাহমুদ বলেন, পত্রিকা অফিসগুলোতে ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়নে একটি মনিটরিং সেল আছে। নতুন আর একটি মনিটরিং সেল গঠন হতে পারে। কোনো পত্রিকা হাউজে বিশৃঙ্খলা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে নতুন সভাপতি। তিনি বলেন, গত রাতে (সোমবার) একটি পত্রিক হঠাৎ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিলো। আমরা পত্রিকা অফিসটিতে গিয়ে মালিকের সঙ্গে আলোচনা করে পত্রিকাটি চালু করার এবং প্রকাশনা অব্যহত রাখার ব্যবস্থা করেছি। অনুষ্ঠানে প্রধান মন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি স্বধীতাকে ভূলুণ্ঠিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের সে চেষ্টা প্রতিহত করতে হবে। তিনি বলেন, এই প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) একমাত্র প্রধানমন্ত্রী যিনি সাংবাদিকদের জন্য এক কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছেন। এ তহবিল থেকে সাংবাদিকদের সহায়তা করা হয়েছে। নতুন করে কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হবে। এ ট্রাস্ট থেকে সহায়তা অব্যহত থাকবে। ডিইউজের নতুন সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, সাংবাদিকরা ‍অমানুষিক পরিশ্রম করেন। কিন্তু সে অনুযায়ী পারিশ্রমিক পান না। আমাদের প্রথম চ্যালেঞ্জ হবে সব পত্রিকা অফিসে অষ্টম ওয়েজ বোর্ড কার্যকর করা। এসময় তিনি বলেন, অশুভ শক্তি যত চেষ্টা করবে আমাদের শক্তি তত বাড়বে। ডিইউজের বিদায়ী সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, আমরা সাগর-রুনী হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে ও অষ্টম ওয়েজ বোর্ডের দাবীতে আন্দোলন করেছি। এ আন্দোলন নিয়ে নানা কথা উঠেছে। ডিইউজেকে দুই ভাগ করার চেষ্টা করা হয়েছে। ওমর ফারুক বলে, দৈনিক ইনকিলাব বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। আবার চালু হয়েছে। কিন্তু এ পত্রিকাটিতে সংবাদকর্মীরা ১২ মাসের উপরে বেতন পান না। দৈনিক জনকণ্ঠেরও একই অবস্থা। এছাড়া অনেক পত্রিকায় ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায় করা হয়নি। আশা করি নতুন কমিটি দ্রুত এসব সমস্যার সমাধানে ব্যবস্থা নিবেন। বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক শাবান মাহমুদ বলেন, এবারের নির্বাচনের আগে গোপনে বিভিন্ন লিফলেট লাগানো হয়েছে। এধরণের অসুস্থ প্রতিযোগীতা রুখতে হবে। মনে রাখতে হবে নেতৃত্ব একদিনের জন্য না। তিনি আরও বলেন, সাংবাদিকদের আবাসন সমস্যার সমাধান করতে না পারা আমাদের ব্যর্থতা। আশা করি নতুন নেতৃত্ব এ সমস্যার সমাধান করবেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, মহাসচিব আবদুল জলিল ভূঁইয়া, ডিইউজে নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান হাসান শাহরিয়ার প্রমুখ। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ ফুল দিয়ে নব নির্বাচিত কমিটিকে বরণ করে নেন। [b]ঢাকা, ৪ ফেব্রুয়ারি (টাইমনিউজবিডি.কম) // এসএমআর[/b]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *