মঙ্গলবার ১৬, অগাস্ট ২০২২
EN

৪৭ পেয়াজ আমদানিকারকে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের তলব

আমদানি করা পেঁয়াজের মজুদ ও বিক্রির তথ্য জানতে শীর্ষ ৪৭ জন আমদানিকারককে তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। সোমবার (২৫ নভেম্বর) ১৩ জন আমদানিকারককে এবং বাকি ৩৪ জনকে আগামীকাল মঙ্গলবার হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আমদানি করা পেঁয়াজের মজুদ ও বিক্রির তথ্য জানতে শীর্ষ ৪৭ জন আমদানিকারককে তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

আজ সোমবার (২৫ নভেম্বর) ১৩ জন আমদানিকারককে এবং বাকি ৩৪ জনকে আগামীকাল মঙ্গলবার হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সমুদ্র, স্থল ও আকাশপথে আমদানির পরেও পেঁয়াজের দাম নাগালে না আসায় কৃত্রিম সংকট সৃষ্টিকারীদের চিহ্নিত করতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ১ হাজার টনের বেশি পেয়াঁজ আমদানিকারী প্রতিষ্ঠানকে তলব করা হয়েছে।

রোববার দেয়া চিঠিতে এসব আমদানিকারকের বিরুদ্ধে পেঁয়াজ মজুদ ও অর্থ পাচারের অভিয়োগ রয়েছে উল্লেখে করে কী দামে, কার কাছে কত মূল্যে বিক্রি করেছেন এবং কত মজুদ আছে সেসব তথ্য দেয়ার পাশাপাশি শুনানিতে অংশ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

শুল্ক গোয়েন্দার মহাপরিচালক জানিয়েছেন, জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যে কোনো গরমিল পাওয়া গেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কৃষি অধিদপ্তরের তথ্যমতে দেশে বছরে ৬ লাখ মেট্রিক টন পেয়াজ পচে যায়। যা উৎপাদিত পেয়াজের প্রায় ২৫ শতাংশ। এগুলি দিয়ে প্রায় তিন মাসের চাহিদা মেটানো সম্ভব।

সংশ্লিষ্টদের মতে, সরকার উদ্যোগ নিলে সংরক্ষণের ব্যবস্থা উন্নত হলে এ ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব।

এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *